• DIIT | Daffodil Institute of IT
  • Fee Pay | Credit Card Service
  • City Consultancy Bangladesh Limited
  • call for advertisement
  • call for advertisement
জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ১ম বর্ষ সম্মানে ৫,৬২,৬২৮ প্রার্থীর আবেদন কুয়েট দিবস পালিত হবে ২২ সেপ্টেম্বর গ্রিন ইউনিভার্সিটিতে ‘আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় ইনডোর টুর্নামেন্ট’ অনুষ্ঠিত চুয়েটে প্রথম বর্ষে ভর্তির আবেদন শুরু ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮ সালের উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের বৃত্তি দেবে আল-আরাফাহ্‌ ব্যাংক বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ে স্নাতক প্রথম বর্ষে ভর্তির আবেদন শুরু জবিতে প্রথম সমাবর্তনের জন্য কমিটি গঠন প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে সরেজমিনে যাচাই করে এমপিও উপাচার্যের কার্যালয়ে বিশৃংখলার দায়ে বাকৃবিতে ২ জনকে সাময়িক বরখাস্ত ঢাবির 'খ' ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা শুক্রবার For Advertisement Call Us @ 09666 911 528 or 01911 640 084 শিক্ষা সংক্রান্ত বিষয়ে সহযোগিতা নিতে ও এডু আইকন ফোরামে যুক্ত হতে ক্লিক করুন Career Opportunity at Edu Icon: Apply Online চায়নায় স্নাতকোত্তর লেভেল এ সম্পূর্ণ বৃত্তিতে পড়াশুনা করতে যোগাযোগ করুন: ০১৬৮১-৩০০৪০০ | ০১৭১১১০৯ ভর্তি সংক্রান্ত আপডেট খবরাখবর এর নোটিফিকেশন পেতে ক্লিক করুন চার বছর মেয়াদি ডিপ্লোমা ইন ইঞ্জিনিয়ারিং কোর্সে Niet Polytechnic-Dhaka পলিটেকনিকে ভর্তি চলছে All trademarks and logos are property of their respective owners. This site is not associated with any of the businesses listed, unless specifically noted.
  • Digital Marketing

স্টেটমেন্ট অব পারপোজ লিখতে যে বিষয় মাথায় রাখা উচিত

Amrita Banik | January 28, 2018
প্রতিকী ছবি

প্রতিকী ছবি

ইউনিভার্সিটিতে আবেদন করার ক্ষেত্রে একটি অত্যন্ত গুরুত্বপর্ণ ধাপ হচ্ছে- আপনি কেন সেই ইউনিভাসিটিতে ভর্তি হতে চান সেই কারণ দর্শানো, এবং এত হাজার হাজার আবেদনকারীর মধ্যে কেনই বা আপনাকে বেছে নেওয়া হবে সেটা ব্যাখ্যা করা। এসব প্রশ্নের উত্তর দিতেই ইউনিভার্সিটিকে উদ্দেশ্য করে লেখা হয় স্টেটমেন্ট অফ পারপাস (SOP)।

যেহেতু এই প্রসঙ্গটি নিয়ে বিশদ আলোচনা প্রয়োজন, SOP নিয়ে পর্বটি আমরা দুই খন্ডে ভাগ করেছি। প্রথম খন্ডে থাকবে SOP কি, কেন লিখবেন, এবং কিভাবে স্টেটমেন্ট অব পারপোজ লেখার জন্য প্রস্তুতি নিবেন। পরের খন্ডে থাকবে কিভাবে SOP লিখতে হয় এবং এর কাঠামোগত দিকগুলো।
অনেক বিশ্ববিদ্যালয়ে মাষ্টার্স লেভেলে আবেদনপত্রের সাথে সিভি, মোটিভেশান লেটার, রিকমেন্ডেশান লেটার পাঠাতে বলে। এই মোটিভেশান লেটার খুব গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করে আপনার সিলেক্টেড হওয়ার বেপারে। তবে দু:খজনক হলেও সত্য যে, এইসব লেটারের বেশীরভাগই সিলেকশান কমিটিকে সন্তুষ্ট করতে ব্যর্থ হয়।

মোটিভেশান লেটার কি?

মোটিভেশান লেটার এবং SOP [Statement of Purpose] একই জিনিষ। এক এক দেশে এক এক ভার্সিটিতে ভিন্ন নাম দিয়ে থাকে এই ডকুমেন্টের। যে ভার্সিটিতে আপনি আবেদন পাঠাচ্ছেন এবং এই যে সাবজেক্টে আপনার পড়ার ইচ্ছা, তা কেন হল তা সুন্দর সাবলীল মানসম্মত ইংরেজীতে সম্পূর্ণভাবে নিজের চিন্তাধারার এবং একেবারেই অন্য কোন লেখার গঠন/ভাব/বাক্যকে সরাসরি অনুকরণ না করে লেখা একটি বাস্তব রচনা বা গল্পকেই মোটিভেশান লেটার বলা যেতে পারে।

কিভাবে মোটিভেশান লেটারকে মূল্যায়ন করা হয়?

প্রতিটি নির্বাচক কমিটির আলাদা আলাদা নিজস্ব ধারা আছে, এবং তারা নিজেরাই ঠিক করে কি ধরনের মোটিভেশান লেটার তারা উপযুক্ত হিসেবে ধরবে। তাই বলা খুব কঠিন যে আপনার মোটিভেশান লেটারটি আসলেই সাকসেসফুল হবে কিনা। এটি বিশ্ববিদ্যালয়, ডিপার্টমেন্ট, নির্বাচক কমিটি এবং সর্বোপরি ব্যক্তি’র উপর নির্ভর করে।

পিএইচডি এর ক্ষেত্রে সাধারণত প্রফেসর বা প্রফেসরের স্টাফ পারসোনেলরাই মোটিভেশান লেটার পড়ে থাকেন। মাষ্টার্সের জন্য জার্মানীতে আলাদা ভর্তি কমিটি থাকে। এবং উনারাই এগুলো পড়ে থাকেন।

মোটিভেশান লেটারের কোন সুনির্দিষ্ট গঠন (structure) আছে কি??

মোটিভেশান লেটারের সুনির্দিষ্ট কোন আকার নেই। তবে গুছানো এবং ধারাবাহিক হওয়া উচিত লেখাগুলো। প্রতিটি প্যারাগ্রাফের প্রথম বাক্যটি খুবই মূল্যবান। এই বাক্যটি দিয়েই আপনাকে এই লেখার পাঠককে বাধ্য করতে হবে পুরো প্যারাগ্রাফটি পড়ার জন্য। সুতরা্ং চেষ্টা করবেন যাতে প্রথম বাক্যে এমন কিছু উপকরণ দিয়ে রাখতে যা পুরা প্যারাগ্রাফের সারমর্মকে ধারণ করে এর পাঠককে সম্পুর্ণ প্যারাগ্রাফটি পড়ার জন্য আকর্ষণ করে।
যা যা তথ্য দেয়া প্রয়োজন...
আপনার জীবনের ঘটে যাওয়া তথ্যই দিবেন এখানে। অস্বাভাবিক কিছু লেখা থেকে একদম বিরত থাকুন। কঠিন ভাষাগত গঠন, GRE থেকে অর্জিত ভোকাবুলারী বিদ্যা ইত্যাদি জাহির করা হতে বিরত থাকুন। অন্য কোন মোটিভেশান লেটারের থিম কপি করা বা সরাসরি বাক্যচয়ন করা থেকে বিরত থাকুন। আপনার সবচেয়ে প্রয়োজনীয় যা যা দরকার সেগুলো হল ভাষাগত দক্ষতা, সাহিত্যিক মনোভাব, সরল অথচ আকর্ষনীয় শব্দচয়ন, সিম্পল+কম্প্লেক্স+কম্পাউন্ড বাক্যসমূহের অত্যন্ত সাংগঠনিক ও সাবলীল ও উপযুক্তভাবে ব্যবহার ইত্যাদি।

সাধারণভাবে আপনি নিচের বিষয়গুলো নিয়ে আলোচনা করতে পারেন। তবে তা সম্পূর্ণই আপনার স্বাধীনতা। সাধারণত উচ্চশিক্ষার ক্ষেত্রে এই বিষয়গুলোই নির্বাচকগণ দেখতে চান।
১. উচ্চশিক্ষার কারণ। অর্থাৎ, আপনি উচ্চশিক্ষায় আসার আগের শিক্ষাজীবন যে খুবই সফলভাবে সম্পন্ন করেছেন এবং আপনি যে যথেষ্ট যোগ্য একজন আবেদনকারী সেটি আপনার লেখায় অত্যন্ত সততা ও বিশ্বাসযোগ্যভাবে বুঝিয়ে দিতে হবে।

শিক্ষা সংক্রান্ত খবরাখবর নিয়মিত পেতে রেজিস্ট্রেশন করুন অথবা Log In করুন।

Account Benefit
২. আপনার উচ্চশিক্ষার বিষয়বস্তু। কেন ওই বিষয়ে আপনি আগ্রহী তা ব্যাখ্যা করতে হবে। এই বিষয় নিয়ে আপনি কিভাবে জানলেন, কোন কাজ করার সুযোগ হয়েছে কিনা, এই বিষয়ে আপনার ভবিষ্যৎ কি, কিভাবে এটি আপনি মানুষের উপকারে কাজে লাগাবেন, আপনার জীবনের লক্ষ্যের সাথে এর সম্পর্ক কি ইত্যাদি আপনি লিখতে পারেন এখানে।

৩. উচ্চশিক্ষা গ্রহণ করে আপনি অত:পর কি করবেন? আপনি আপনার কেরিয়ার কিভাবে গঠন করতে চান এবং এই উচ্চশিক্ষা কিভাবে আপনার কেরিয়ারে প্রভাব ফেলবে তা ব্যাখ্যা করুন সাবলীলভাবে।

৪. আপনি কেন নিজেকে উপযুক্ত বলে মনে করেন উক্ত বিষয়ে উচ্চশিক্ষা অর্জনের জন্য?

৫. আপনার ব্যক্তিগত সাফল্য, কর্ম অভিজ্ঞতা, খেলাধুলা ও সাংস্কৃতিক অবদান ইত্যাদি।
অন্যান্য সব তথ্যের উপস্থাপনের সাথে সাথে বিশেষ করে আপনার ক্যারিয়ারের উদ্দেশ্য/গোল নিয়ে লিখুন, লিখুন কিভাবে আপনার উচ্চশিক্ষা এবং আপনি যে কোর্সে আবেদন করছেন সেটি আপানার ক্যারিয়ার গোলকে প্রভাবিত করবে। কোর্সের সাথে সংশ্লিষ্ট এমন কোন প্রফেশনাল কাজ বা রিসার্চের বা ভলান্টিয়ার বা অন্যকোনভাবে কাজ করার অভিজ্ঞতা থাকলে সেগুলো উল্লেখ করতে পারেন। আপনার ব্যক্তিগত স্কিলগুলো সুন্দর করে বর্ণনা করুন, উক্ত কোর্সে পড়ার জন্য আপনার এই স্কিলগুলো আপনাকে কিভাবে মোটিভেট করছে সেকথা সুন্দর করে লিখুন। কোন একটি গ্রুপে বা টিমে কাজ করার অভিজ্ঞতা থাকলে তাও লিখুন। লিডারশিপ, গ্রুপ লিডার, ম্যানেজারশিপ ইত্যাদি বিষেয়ে কাজ করার অভিজ্ঞতা থাকলে সেগুলো উল্লেখ করতে পারেন, তবে তা যেন অবশ্যই অপ্রাসঙ্গিক না হয় এবং ফ্ল্যাটারী (তেল দেওয়া) না হয়। ।

এসব কিছুই যদি না থাকে তাহলে আপনার ব্যাচেলর/মাস্টার্সের কয়েকটি স্পেশাল কোর্সের কথা বলতে পারেন যেগুলো আপনার আবেদনকারী কোর্সের সাথে খুবই রিলেটেড।
একটি মোটিভেশন লেটার এর নমুনা:
অন্যান্য সব তথ্যের উপস্থাপনের সাথে সাথে বিশেষ করে আপনার ক্যারিয়ারের উদ্দেশ্য/গোল নিয়ে লিখুন, লিখুন কিভাবে আপনার উচ্চশিক্ষা এবং আপনি যে কোর্সে আবেদন করছেন সেটি আপানার ক্যারিয়ার গোলকে প্রভাবিত করবে। কোর্সের সাথে সংশ্লিষ্ট এমন কোন প্রফেশনাল কাজ বা রিসার্চের বা ভলান্টিয়ার বা অন্যকোনভাবে কাজ করার অভিজ্ঞতা থাকলে সেগুলো উল্লেখ করতে পারেন। আপনার ব্যক্তিগত স্কিলগুলো সুন্দর করে বর্ণনা করুন, উক্ত কোর্সে পড়ার জন্য আপনার এই স্কিলগুলো আপনাকে কিভাবে মোটিভেট করছে সেকথা সুন্দর করে লিখুন। কোন একটি গ্রুপে বা টিমে কাজ করার অভিজ্ঞতা থাকলে তাও লিখুন। লিডারশিপ, গ্রুপ লিডার, ম্যানেজারশিপ ইত্যাদি বিষেয়ে কাজ করার অভিজ্ঞতা থাকলে সেগুলো উল্লেখ করতে পারেন, তবে তা যেন অবশ্যই অপ্রাসঙ্গিক না হয়।
এসব কিছুই যদি না থাকে তাহলে আপনার ব্যাচেলর/মাস্টার্সের কয়েকটি স্পেশাল কোর্সের কথা বলতে পারেন যেগুলো আপনার আবেদনকারী কোর্সের সাথে খুবই রিলেটেড।

৪. কোন শর্টহ্যান্ড বা অ্যাক্রোনাইমস ব্যবহার করবেন না। যেমন, USA, UK, FBI, NASA ইত্যাদি। যদি ব্যবহার করতেই হয় তাহলে প্রথমবার যখন শব্দটি লিখবেন তখন সম্পূর্ণ নামে লিখবেন এবং ব্রাকেটে অ্যাক্রোনাইম টি লিখবেন। উক্তলেখায় পরবর্তীতে যদি আবার এটি ব্যবহার করতে হয় তখন অ্যাক্রোনাইম টি ব্যবহার করতে পারেন। তবে ‘অ্যাক্রোনাইম’ ব্যবহার অনেকের কাছে ‘দৃষ্টিকটু’ হতে পারে।

৫. ওয়ার্ড লিমিট থাকলে তা অতিক্রম করা যাবে না।

৬. আপনার সিভি থেকে কোন কিছু আপনার মোটিভেশার লেটারে পুনরাবৃত্তি করা যাবে না। যে তথ্যগুলি মোটিভেশান লেটারে অতি প্রয়োজন, শুধুমাত্র সেগুলোই পুনরাবৃত্তি করা যেতে পারে।

বিভিন্ন দেশে উচ্চশিক্ষার জন্য সে দেশের সরকারি, বেসরকারি বিভিন্ন বৃত্তি সম্পর্কে জানতে হলে এখানে ভিজিট করুন।

  • call for advertisement
Submit Your Comments:
  • call for advertisement
  • call for advertisement
  • ADDRESSBAZAR | YELLOW PAGE
  • call for advertisement
  • call for advertisement
  • call for advertisement
  • Personal Horoscope | Rashi12.com
  • call for advertisement
  • call for advertisement
  • call for advertisement