• Bangladesh Malaysia Study Centre Ltd (BMSCL)
  • NIFT | NIET | NPI | Sonargaon University Admission
  • IST | Admission Going On
  • Top of Home Page | 6
  • call for advertisement
  • call for advertisement
  • call for advertisement
  • Good Luck Ball Pen

উচ্চশিক্ষার জন্য মালয়েশিয়া হতে পারে আদর্শ পছন্দ

Online Desk | November 23, 2016
মালয়েশিয়ায় পড়তে চাইলে

মালয়েশিয়ায় পড়তে চাইলে

মালয়েশিয়া বর্তমানে শুধুমাত্র এশিয়ার মধ্যেই নয়, বরং সারাবিশ্বে একটি উন্নত দেশ হিসাবে ব্যাপক পরিচিতি লাভ করেছে। শিক্ষা, সংস্কৃতি, বিজ্ঞান, প্রযুক্তি সর্বক্ষেত্রে মালয়েশিয়া পৃথিবীর বুকে একটি মডেল হিসাবে বিবেচিত হচ্ছে। আর তাই বিশ্ববাসীর নজর এখন এশিয়ার এই দেশটির দিকে।

শিক্ষা ক্ষেত্রে মালয়েশিয়া সাম্প্রতিক বছরগুলোতে করেছে অভূতপূর্ব উন্নতি। মালয়েশিয়া জুড়ে ছড়িয়ে রয়েছে অসংখ্য উন্নতমানের উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। বিশ্বের বিভিন্ন দেশের ছাত্র-ছাত্রীরা বিশেষত দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া ও আফ্রিকার বিভিন্ন দেশের ছাত্রছাত্রীরা উচ্চ শিক্ষা গ্রহণের জন্য মালয়েশিয়ায় পাড়ি জমাচ্ছে। বাংলাদেশ থেকেও প্রতিবছর উল্লেখযোগ্য সংখ্যক ছাত্রছাত্রী পড়তে যাচ্ছে।

যেসব বিষয় পড়ানো হয়ঃ মালয়েশিয়ার উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে অসংখ্য বিষয়ে পাঠদান করা হয়। উচ্চশিক্ষার জন্য আদর্শ বিষয়গুলো হলো- বিজনেস ম্যানেজমেন্ট, ইনফরমেশন সায়েন্স এন্ড টেকনোলজি, মেডিসিন, ভেটেরিনারী মেডিসিন, মডার্ন ল্যাঙ্গুয়েজ এন্ড কমিউনিকেশন, ফার্মাসিউটিক্যাল সায়েন্স, বিজনেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন, চার্টার্ড একাউন্টেন্সি, হেলথ সায়েন্সেস, ইঞ্জিনিয়ারিং, এগ্রিকালচার, ফরেস্ট্রি, ইসলামিক স্টাডিজ, সোশ্যাল সায়েন্স এন্ড হিউম্যানিটিজ, এনভায়রনমেন্টাল সায়েন্স, ডিজাইন এন্ড আর্কিটেকচার।

প্রয়োজনীয় কাগজপত্রঃ যথাযথভাবে পূরণকৃত আবেদনপত্র; সকল শিক্ষাগত যোগ্যতার সনদের (মার্কশীটের) ইংরেজি ট্রান্সক্রিপ্ট; স্কুল/কলেজ ত্যাগের ছাড়পত্র; টোফেল অথবা আইইএলটিএস টেস্টের রেজাল্ট শীট; পাসপোর্টের ফটোকপি; আবেদন ফি পরিশোধের প্রমাণপত্র; সিকিউরিটি বা ব্যক্তিগত বন্ড ফি পরিশোধের প্রমাণপত্র; স্টুডেন্ট পাস-এর ভিসা ফি পরিশোধের প্রমাণপত্র।

শিক্ষা ব্যয়ঃ মালয়েশিয়ান পাবলিক/প্রাইভেট মালয়েশিয়ায় পাবলিক ও প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর টিউশন ফি প্রায় একই রকম। ফাউন্ডেশনের জন্য সাত হাজার রিঙ্গিত থেকে শুরু করে ২৫ হাজার রিঙ্গিত পর্যন্ত হয়ে থাকে। ব্যাচেলরের জন্য বার্ষিক দুই হাজার রিঙ্গিত থেকে শুরু করে ২৫ হাজার রিঙ্গিত পর্যন্ত হতে পারে। পোস্ট গ্র্যাজুয়েটের জন্য একই রকমের হয়ে থাকে। এই খরচ শুধু যে ইউনিভার্সিটি বা কলেজগুলোতে বিশ্বমানের লেখাপড়া হয়ে থাকে। বাকি যাঁরা কাজের জন্য যান কিন্তু স্টুডেন্ট ভিসা; তাঁদের খরচ বার্ষিক সাড়ে তিন হাজার থেকে সাত হাজার রিঙ্গিত পর্যন্ত হয়ে।

জীবনযাত্রার ব্যয়ঃ
মালয়েশিয়ায় একজন বিদেশি ছাত্রছাত্রীর জীবনযাত্রায় মাসিক ব্যয় ৫০০ থেকে ৬০০ রিঙ্গিত। বর্তমানে বাংলাদেশি টাকায় প্রায় ১০ হাজার থেকে ১২ হাজার টাকা।

স্বাস্থ্যবিমাঃ মালয়েশিয়ায় অধ্যয়ন করতে যাওয়া বিদেশি শিক্ষার্থীদের অবশ্যই পর্যাপ্ত স্বাস্থ্যবিমা থাকতে হবে। এটি বর্তমানে প্রাইভেট ইউনিভার্সিটিতে ইএমজিএস ফির সঙ্গে নেওয়া হয়। পাবলিক ইউনিভার্সিটিতে টিউশন ফি এর সঙ্গে নেওয়া হয়।

অন্যান্য প্রয়োজনীয় তথ্য
কাজের সুযোগঃ মালয়েশিয়ায় একজন বিদেশি ছাত্রছাত্রী তাদের পূর্ণকালীন শিক্ষা শুরু করার পর কাজের অনুমতির জন্য আবেদন করতে পারেন। একজন শিক্ষার্থী সেমিস্টার পরবর্তী ছুটিতে অথবা ৭ দিনের অতিরিক্ত মেয়াদের কোন ছুটিতে সপ্তাহে সর্বোচ্চ ২০ ঘন্টা কাজ করার অনুমতি পেয়ে থাকেন। ক্যাম্পাসে কাজ করে যে উপার্জন করা সম্ভব তা দিয়ে টিউশন ফি বা জীবনযাত্রার ব্যয় নির্বাহ করা সম্ভব নয়। কাজ করতে আগ্রহী একজন শিক্ষার্থীর অবশ্যই স্টুডেন্ট পাস থাকতে হবে।

শিক্ষা সংক্রান্ত খবরাখবর নিয়মিত পেতে রেজিস্ট্রেশন করুন অথবা Log In করুন।

Account Benefit
যেসব ক্ষেত্রে কাজ পাওয়া যায়ঃ মালয়েশিয়ায় বিদেশি শিক্ষার্থীরা রেস্টুরেন্ট, পেট্রোল পাম্প, মিনি মার্কেট ও হোটেলগুলোতে কাজ করতে পারেন। এসব কাজ থেকে মাসিক ৩০০ থেকে ৭৫০ মার্কিন ডলার পর্যন্ত উপার্জন করা সম্ভব।

ভিসা আবেদনঃ মালয়েশিয়ায় উচ্চ শিক্ষার্থে স্টুডেন্ট পাস-এর জন্য ঢাকাস্থ মালয়েশিয়ান দূতাবাসে যোগাযোগ করতে হবে। দূতাবাস কর্তৃক নির্দেশিত প্রক্রিয়ায় আপনাকে ভিসার জন্য আবেদন করতে হবে। তবে ভিসা ইস্যু করা হবে মালয়েশিয়া থেকে।

ঢাকাস্থ মালয়েশিয়ান হাইকমিশনের ঠিকানাঃ বাড়ী-১৯, রোড-৬, বারিধারা, ঢাকা-১২১২।

আবেদন প্রক্রিয়াঃ
আগ্রহী বিদেশি শিক্ষার্থীকে সর্বপ্রথম ইন্টারনেট থেকে তার পছন্দের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর একটি তালিকা প্রস্তুত করতে হবে। অতঃপর তাকে জানতে হবে তিনি যে বিভাগে ভর্তি হতে চান নির্দিষ্ট বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর সে বিভাগে ভর্তির আবেদনের শেষ সময়সীমা কবে নাগাদ বিদ্যমান। প্রতিষ্ঠানটির ভর্তি অফিস বরাবর ভর্তি তথ্য এবং আবেদন ফর্মের জন্য সরাসরি লিখতে হবে। বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইট থেকেও সরাসরি আবেদন ফর্ম ডাউনলোড করে নেয়া যেতে পারে। কিছু বিশ্ববিদ্যালয়ে অনলাইন আবেদন প্রক্রিয়া চালু আছে।

ভর্তি অফিস থেকে আপনাকে আবেদনপত্র, ট্রান্সক্রিপ্ট এবং প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সংক্রান্ত সব তথ্য জানাবে। আপনাকে উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে স্টুডেন্ট পাস-এর জন্য আবেদন করতে হবে।

আপনার পক্ষে আপনার পছন্দের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ইমিগ্রেশন হেডকোয়ার্টার্স-এর ‘পরিচালক, পাস ও পারমিট বিভাগ’ বরাবর আবেদন করবে। আবেদনের ১ মাসের ভেতর ইমিগ্রেশন কর্তৃপক্ষ সংশ্লিষ্ট শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে অবহিত করবে।

প্রয়োজনীয় সব কাগজপত্র এবং তথ্যাবলী সংগ্রহের জন্য আপনাকে কমপক্ষে ৬ মাস সময় হাতে রেখে প্রস্ততি শুরু করতে হবে। আবেদনপত্র প্রক্রিয়াকরণ, স্টুডেন্ট পাস অনুমোদন এবং ভিসা ইস্যু ইত্যাদি সবকিছু মালয়েশিয়া থেকে সম্পন্ন করা হয়।

বর্তমানে বেশ কিছু প্রতিষ্ঠান এ বিষয়ে শিক্ষার্থীদের সহযোগিতা করছে। বিদেশে উচ্চশিক্ষা ও ভিসা প্রসেসিং-এর ক্ষেত্রে শিক্ষার্থীদের সর্বাত্মক সহযোগিতা করে থাকে ‘নিলুফা গ্লোবাল নেটওয়ার্ক’ মোবাইলঃ ০১৭১৮-২৮৬৩৫১; ‘প্রিন্সিপাল এডুকেশন’ মোবাইলঃ ০১৭৪৮-৬১৩৩১৮; ‘মেগা গ্লোবাল কন্সালটেন্সি’ ফার্মগেট; ‘মাস্টার এডুকেশন’ মোবাইলঃ ০১৭২৮-৫৫৬৬৬৫; ‘সিন্নামন ইন্টারন্যাশনাল’ মোবাইলঃ ০১৯২১-০৬৭৬৪৬।

  • call for advertisement
Submit Your Comments:
  • Career @ Edu Icon
  • call for advertisement